সর্বশেষ সংবাদ >>

খয়েরপুর বিধানসভা কেন্দ্রের গীতবিতান কমিউনিটি হলে মুখ্যমন্ত্রী স্বনির্ভর যোজনার উপর মেগা সচেতনতা শিবিরের সুচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব।

T24X7 প্রতিনিধি17/10/2020TRIPURA

মুখ্যমন্ত্রী স্বনির্ভর যোজনার উপর শনিবার খয়েরপুর বিধানসভা কেন্দ্রের গীতবিতান কমিউনিটি হলে অনুষ্ঠিত হয় এক মেগা সচেতনতা শিবির। একই সাথে গ্রামাঞ্চলের ব্যবসায়ীদের জন্য বিশেষ অভিযানের সুচনা হয়। প্রদীপ প্রজ্জলনের মধ্যদিয়ে মেগা সচেতনতা শিবিরের সুচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। শিবিরের সুচনা করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন একজন ব্যবসায়ীর মূল লক্ষ্য হচ্ছে ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসা করে লাভ করা এবং ব্যাঙ্কের ঋণ সময়মত পরিশোধ করে দেওয়া। ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসা শুরু করলে তার মধ্যে দায়িত্ববোধ থাকে। প্রফেশনাল হলে একজন ব্যবসায়ীর মধ্যে ব্যবসায়ীক মানসিকতা তৈরি হবে। দেশের প্রধানমন্ত্রী বর্তমানে প্রত্যেকটা ব্যক্তিকে প্রফেশনালের দিকে যেতে বাধ্য করছে। বাচার জন্য ব্যবসা নয়। ব্যবসার জন্য বাচা। রাজ্যের বর্তমান সরকার ছোট ব্যবসায়ীদের স্বনির্ভর করে তোলার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। আগে ছোট ব্যবসায়ীদের দোকানের খতি হলে ইনস্যুরেন্স পেত না। কারন তাদের ট্রেড লাইসেন্স নেই। তাআই বর্তমান সরকার ছোট দোকানদারদের ১ হাজার টাকা করে সরকার থেকে বিমা করে দেওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। স্বপ্ন না দেখলে বড় ব্যবসায়ী হওয়া যায় না। কারন মনে আত্মবিশ্বাস থাকে না। রাজ্যের পূর্বতন সরকার যুবকদের স্বপ্ন দেখার রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছিল বলেও অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী।পূর্বতন সরকার গরিবের জন্য কান্না করতো। অথচ গরিব আর সাধারন মানুষকে আটকানোর জন্য সকল ধরনের ব্যবস্থা করে রেখেছিল। সাধারন মানুষ যেন নিজের পায়ে দারাতে না পারে সেই দিশাতে ক্রমাগত কাজ করে গেছে পূর্বতন সরকার। মানুষের অধিকার কেরে নেওয়া, মানুষকে সঙ্কুচিত করে রাখার কাজ করেছে পূর্বতন সরকার। কারন যতবেশি মানুষকে দাবিয়ে রাখা যাবে, ততবেশি মানুষকে ব্যবহার করা যাবে। সেই দিশাতে মোদী সরকার কাজ করেনা বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে গ্রামে শহরে যত দোকানদার রয়েছে সকলকে ট্রেড লাইসেন্স করে দেওয়ার। তার জন্য দপ্তরকে সময়সীমা বেধে দেওয়া হয়েছে। ট্রেড লাইসেন্স দেওয়ার ক্ষেত্রে দল কিংবা রং দেখা হচ্ছে না। পূর্বতন সরকারের সময় যতগুলি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছিল সবগুলি যোজনা দলদাসের যোজনা ছিল।আগে রাজ্যে যারা সরকারি কর্মচারী তাদের পেনশনের ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু একজন সব্জি ব্যবসায়ী ৬০ বছর হওয়ার পর তার জন্য কোন পেনশনের ব্যবস্থা ছিল না। তার জন্য কোন পরিকল্পনাও ছিল না। কিন্তু বর্তমানে ছোট দোকানদারদের জন্যও পেনশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। রাজ্য সরকার যে সিদ্ধান্ত গুলি গ্রহণ করেছে, তাতে ত্রিপুরার মানুষের আমূল পরিবর্তন হয়ে যাবে। এখন যদিও অনেকে তা বুঝতে পারছে না। ব্যবসায়ী তৈরি করার জন্য রাস্তা তৈরি করে দিচ্ছে বর্তমান সরকার। কিন্তু পূর্বতন সরকার তা করে দেয়নি। কারন তা করে দিলে মানুষকে নিয়ে মিছিল করা যেত না। আগে মিটিং মিছিলে না গেলে মানুষকে ভয় দেখানো হত। বর্তমানে তা হয়না বলেও দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব।এইদিনের অনুষ্ঠানে বেশ কয়েকজন ছোট দোকানদারের হাতে ট্রেড লাইসেন্স তুলে দেওয়া হয়। মুখ্যমন্ত্রী এই সকল ছোট দোকানদারের হাতে ট্রেড লাইসেন্স তুলে দেন। অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন খয়েরপুর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক রতন চক্রবর্তী, পশ্চিম জেলার জেলা শাসক শৈলেস কুমার যাদব, পশ্চিম জেলার জেলা পরিষদের সভাধিপতি সহ অন্যান্যরা।