সর্বশেষ সংবাদ >>

বছরের শেষে করোনায় আক্রান্ত হবেন অর্ধেক ভারতবাসী! সতর্কবার্তা বিশেষজ্ঞদের।

T24x7 প্রতিনিধি01/06/2020ত্রিপুরা

সারা দেশে চার দফার লকডাউন শেষ হয়ে সোমবার থেকে শুরু হল পঞ্চম দফার লকডাউন। চতুর্থ দফার লকডাউনের শেষের দিনে আমাদের দেশে ২৪ ঘন্টায় আক্রান্তের সংখ্যা হল ৮৩৮০। দেশের নাম করা ভাইরোলজিস্টদের মতে দেশে এখনও করোনার সংক্রমণ শীর্ষে পৌঁছয়নি।দেশে চতুর্থ দফাল লকডাউনের শেষে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়বে।যা শুরু হবে জুন থেকে। এরপরেই মহল্লা সংক্রমণ শুরু হবে। যদিও অনেক বিশেষজ্ঞ ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন ভারতে মহল্লা সংক্রমণ শুরু হয়ে গিয়েছে।এই বিশেষজ্ঞরা আরও জানিয়েছেন, ডিসেম্বরের শেষে অর্ধেক ভারতবাসী আক্রান্ত হবেন। তবে এর মধ্যে নব্বই শতাংশ জানতেই পারবেন না যে তারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ৫ থেকে ১০ শতাংশের চিকিত্‍সায় হাই-ফ্লো অক্সিজেনের প্রয়োজন হবে। আর ৫ শতাংশের জন্য ভেন্টিলেটরের প্রয়োজন পড়বে।বিশেষজ্ঞরা রাজ্যগুলিকে উদ্দেশ্য করে বার্তা দিয়েছেন, রাজ্যে গুলোর উচিত স্বাস্থ্যেক্ষেত্রে বিনিয়োগ বাড়ানো। বিশেষ করে যেসব জায়গায় ইনটেনসিভ মেডিক্যাল কেয়ারের প্রয়োজন। করোনার মোকাবিলায় ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের তরফে রাজ্যগুলিকে বলা হয়েছে প্রতিটি জেলায় অন্তত দুটি করে কোভিড টেস্টিং ল্যাব খোলার জন্য। দেশের মধ্যে কর্নাটক হল প্রথম রাজ্য যেখানে টেস্টিং ল্যাবের সংখ্যা ৬০-এ পৌঁছে গিয়েছে।এদিকে দেশে করোনায় মৃত্যুর হার নিয়ে বলতে বিশেষজ্ঞদের অভিমত, সারা দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ৩-৪ শতাংশ। দেশের মধ্যে গুজরাতে মৃত্যুর হার সব থেকে বেশি, ৬ শতাংশ। ভ্যাকসিন আবিষ্কারের জন্য পরের বছর মার্চ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। মানুষকে কোভিডকে সঙ্গে নিয়ে বাঁচার উপায় বের করতে হবে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।